গ্রুপেই বাদ আর্জেন্টিনা? নতুন কিছু নয়!

গত বিশ্বকাপের রানার্সআপ দল। এবারের বিশ্বকাপে এসেছে খুঁড়িয়ে খুঁড়িয়ে। তাই প্রত্যাশার পারদ অতটা চড়া ছিল না। কিন্তু এমন দুরবস্থা হবে, সেটিও নিশ্চয়ই কেউ ভাবতে পারেনি! ঐতিহ্যগত কারণেই আর্জেন্টিনাকে রাখতে হয়েছিল বিশ্বকাপের ফেবারিটদের কাতারে। তবে আর্জেন্টিনার এখন বিশ্বকাপ জেতা বহু দূরের বিষয়, গ্রুপপর্ব পার হতে পারবে কি না, সেটাই অনিশ্চিত।

Pran upক্রোয়েশিয়ার কাছে ৩-০ গোলে বিধ্বস্ত হয়ে কাজটা প্রায় অসম্ভব বানিয়ে ফেলেছে আর্জেন্টিনাই। তাঁদের দ্বিতীয় পর্বে খেলা নির্ভর করছে অনেক যদি-কিন্তুর ওপর। এসব সমীকরণ মিললেই কেবল আর্জেন্টিনার শেষ ষোলোয় ওঠা সম্ভব হবে। তবে গ্রুপপর্ব থেকে বিদায় নিলে তা আর্জেন্টিনার জন্য নতুন অভিজ্ঞতা হবে না। এর আগে চারবার প্রথম পর্ব থেকে বাদ পড়েছে লাতিন দলটি।

বিশ্বকাপের প্রথম (১৯৩০) টুর্নামেন্টেই ফাইনালে উঠেছিল আর্জেন্টিনা। কিন্তু পরের টুর্নামেন্টে (১৯৩৪) তাঁরা বাদ পড়েছে প্রথমপর্ব থেকে। ১৬ দলের সেই বিশ্বকাপ শুরু হয়েছিল সরাসরি নক-আউট সূচি দিয়ে। সেখানে সুইডেনের কাছে ৩-২ গোলে হেরে যায় আর্জেন্টিনা।

ঠিক তার ২৪ বছর পর আবারও বিশ্বকাপে প্রথম রাউন্ড থেকে বিদায়ের তেতো স্বাদ পায় আর্জেন্টিনা। ১৯৫৮ বিশ্বকাপে উত্তর আয়ারল্যান্ডকে হারানোর পর পশ্চিম জার্মানি ও চেকোস্লোভাকিয়ার কাছে তাঁরা হেরে যায়। শেষ পর্যন্ত উত্তর আয়ারল্যান্ড পরের পর্বে গেলেও আর্জেন্টিনার পথচলা থেমে যায় গ্রুপপর্বেই। নিজেদের গ্রুপের তলানিতে থেকে সেবার বিশ্বকাপ অভিযান শেষ করে আর্জেন্টিনা।

১৯৬২ বিশ্বকাপেও একই ভাগ্য বরণ করতে হয় আর্জেন্টিনাকে। বুলগেরিয়ার সঙ্গে জেতার পর ইংল্যান্ডের বিপক্ষে হার গ্রুপপর্ব থেকেই ছিটকে ফেলে তাদের। হাঙ্গেরি ও ইংল্যান্ডের পেছনে থেকে নিজেদের গ্রুপে তৃতীয় হয়েছিল আর্জেন্টিনা। এরপর সর্বশেষ ২০০২ বিশ্বকাপে নিজেদের ইতিহাসে অন্যতম সেরা দল নিয়ে এসেও তাদের বিদায় নিতে হয়েছিল গ্রুপপর্ব থেকে। নাইজেরিয়ার সঙ্গে প্রথম ম্যাচ জিতলেও ইংল্যান্ডের বিপক্ষে হেরে যায় গ্যাব্রিয়েল বাতিস্তুতা-ভেরনদের আর্জেন্টিনা। এরপর সুইডেনের সঙ্গে ড্র করে তারা বিদায় নেয় গ্রুপপর্ব থেকে।

prothom aloএবার রাশিয়ায় মেসিদের ভাগ্যে কী অপেক্ষা করছে কে জানে! তবে বিপদের আশঙ্কাই কিন্তু বেশি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*