পোল্ট্রি মুরগি খাওয়ার ফলে কাজ করবে না কোনও অ্যান্টিবায়োটিক

সপ্তাহে অন্তত দু’টো দিন মুরগির মাংস না হলেই নয়। আর ঝটপট রান্না কিংবা চিকেন ফ্রাইয়ের জন্য তো ব্রয়লার মুরগি ছাড়া উপায়ই নেই। কিন্তু এই মুরগি কি আসলেই আমাদের জন্য উপকারী? একাধিক গবেষণায় এ কথা প্রমাণিত হয়েছে যে ব্রয়লার মুরগি মানুষের দেহের জন্য একদমই শুভকর নয়।

সম্প্রতি লন্ডনের ব্যুরো অফ ইনভেস্টিগেটিভ জার্নালিজিম-এর চালানো একটি সমীক্ষায় উঠে এসেছে, পোল্ট্রি খামারে মুরগির খাবারের সঙ্গে উচ্চ মাত্রায় কোলিস্টিন নামের একটি অ্যান্টিবায়োটিক ব্যবহার করা হয়।

তাই বাজারের প্রায় সব প্রকৃয়াজাত মুরগির মাংসেই উচ্চ মাত্রায় কোলিস্টিনের উপস্থিত রয়েছে। অ্যান্টিবায়োটিক ব্যবহারের ক্ষেত্রে ওয়ার্ল্ড হেল্থ অর্গানাইজেশনের যে বিধি-নিষেধ রয়েছে, তা যে কোনও ভাবেই মানা হচ্ছে না বলেও জানা যায় জার্নালে।আর এর ফলেই অধিকাংশ অ্যান্টিবায়োটিক ওষুধই সুপারবাগ বা বিশেষ ব্যাকটেরিয়ার সংক্রমণ ঠেকাতে ব্যর্থ হচ্ছে।

অর্থাৎ, মুরগি খাওয়ার ফলে অ্যান্টিবায়োটিক ওষুধে আর কোনও কাজ হবে না। অধিকাংশ অ্যান্টিবায়োটিক ওষুধই শরীরে কোনও ব্যাকটেরিয়ার সংক্রমণ ঠেকাতে পারবে না। ফলে কোনও কারণে অসুস্থ হলে সেরে ওঠা খুব মুশকিল হয়ে পড়বে!

আসলে ইদানীং আমরা যত মুরগি খাই তার প্রায় সবই আসে কোনও না কোনও পোল্ট্রি খামার থেকে। আর প্রায় সব পোল্ট্রি খামারেই মুরগির স্বাস্থ্য দ্রুত বাড়াতে, বেশি মাংস পেতে মুরগির খাবারের সঙ্গে এক ধরনের অ্যান্টিবায়োটিক ওষুধ দেওয়া হয়।

এই অ্যান্টিবায়োটিকের প্রভাবে মানুষের শরীরে অ্যান্টিবায়োটিক ওষুধের কার্যক্ষমতা দিনে দিনে হ্রাস পেতে থাকে। বিশেষজ্ঞদের মতে, এই ভাবে চলতে থাকলে একটা সময় অধিকাংশ অ্যান্টিবায়োটিক ওষুধই শরীরে কোনও ব্যাকটেরিয়ার সংক্রমণ ঠেকাতে পারবে না।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*